জামালপুরবকশীগঞ্জবাংলাদেশ সংবাদসকল খবরসারা দেশ

বকশীগঞ্জে বেতন-ভাতার দাবিতে শিক্ষক-কর্মচারীদের মানববন্ধন

bakshigonj%2Bpic%2B25.04.2019

বকশীগঞ্জ প্রতিনিধি ।।
জামালপুরের বকশীগঞ্জের চন্দ্রবাজ রশিদা বেগম স্কুল এ- কলেজের শিক্ষক-কর্মচারীরা বকেয়া বেতন-ভাতা ও নতুন ম্যানেজিং কমিটি অনুমোদনের দাবিতে মানববন্ধন করেছেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রতিষ্ঠান ক্যাম্পাসে ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন করেন তারা।
কলেজ সূত্রে জানাগেছে,উপজেলার চন্দ্রবাজ রশিদা বেগম স্কুল এ- কলেজের ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ শেষ হলে ২০১৮ সালের ১২ ডিসেম্বর মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকশিক্ষা বোর্ডে কমিটি জমা দেন অধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম। কমিটি অনুমোদন না হওয়ায় করায় হাইকোর্টে রিট করেন অধ্যক্ষ। চলতি বছরের ১৩ মার্চ কমিটি অনুমোদনের নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। হাইকোর্টের নির্দেশের পরেও ম্যানেজিং কমিটি অনুমোদন হয়নি। ম্যানেজিং কমিটি না থাকায় ৫ মাস ধরে বেতন-ভাতা পাচ্ছেনা এমপিওভুক্ত ২৯ জন শিক্ষক-কর্মচারী। ফলে মানবেতর জীবন যাপন করছেন তারা। বকেয়া বেতন ভাতার দাবিতে বৃহস্পতিবার দুপুরে মানববন্ধন করেন শিক্ষক-কর্মচারীরা।
ঘন্টাব্যাপী চলা মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সহ- শিক্ষক শিউলী আক্তার,জাহানারা বেগম,আবদুল্লাহ হেল বাকী, নজিবর রহমান,মোরশেদুজ্জামান,ফেরদাউছ রহমান,জাহানারা পারভীন,আজহারুল ইসলাম,রুহুল আমিন, মাহমুদা হক, সাইফুল ইসলাম,আসফিয়া খাতুন,মনিরুজ্জামান,মোজাম্মেল হক,মনিরা পারভীন,মোরাদুজ্জামান, মাসুদুর রহমান, বেবি আক্তার,তানজিল নিপা,উম্মে কুলসুম,আবদুল মতিন,সরোয়ার জাহান,মঞ্জুরুল ইসলাম, শাহজাহান মিয়া, কানিজ ফাতেমা প্রমূখ। শিক্ষকরা দ্রুত সময়ের মধ্যে বকেয়া বেতন-ভাতা ও নতুন ম্যানেজিং কমিটি অনুমোদনের দাবি জানান। দাবি না মানা হলে আমরণ অনশনে যাওয়ার ঘোষনা দেন তারা।
এ ব্যাপারে অধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম বলেন,ম্যানেজিং কমিটি না থাকলে নিয়ম অনুযায়ী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সমন্বয়ে শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা প্রদান করেন। কিন্তু উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ছানোয়ার হোসেন শিক্ষক-কর্মচারীদের বিলে সুপারিশ করছেন না। তাই ৫ মাস যাবত বেতন-ভাতা বন্ধ রয়েছে। তিনি বিষয়টি সমাধানের জন্য সাবেক তথ্যমন্ত্রী আলহাজ¦ আবুল কালাম আজাদ এমপি এবং মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকশিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।
এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ছানোয়ার হোসেন জানান,শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন বিলে আমার কোন স্বাক্ষর প্রয়োজন পড়েনা। তাছাড়া চন্দ্রবাজ রশিদা বেগম স্কুল এ- কলেজের শিক্ষক-কর্মচারীরা বেতন ভাতা পাচ্ছেনা বিষয়টি আমি অবগত নই।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button